শব্দ কাকে বলে? শব্দ কয় প্রকার ও কি কি?

শব্দ কাকে বলে: “বলুন” শব্দের বিভিন্ন অর্থ হতে পারে, যেমন উচ্চস্বরে উচ্চারণ করা, বলা বা জানানো বা মতামত প্রকাশ করা। এটি একটি ক্রিয়াপদ হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে যার অর্থ আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু রিপোর্ট করা বা রাষ্ট্র করা।

শব্দের একাধিক সংজ্ঞাও রয়েছে। একটি শব্দকে ভাষার একক হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে যার অর্থ রয়েছে এবং এটি এক বা একাধিক সিলেবল দ্বারা গঠিত, অথবা বিকল্পভাবে, এটি এমন কিছু বোঝাতে ব্যবহার করা যেতে পারে যা বলা হয়, একটি মন্তব্য। এই আর্টিকেলটিতে শব্দ সম্পর্কে আপনাদের জানাতে চেষ্টা করবো।

প্রথমে জানবো শব্দ কাকে বলে। এরপর জানবো শব্দ কয় প্রকার ও কি কি এবং প্রত্যেকটি প্রকার এর সংজ্ঞা সাথে উদাহরণ।

শব্দ কি বা কাকে বলে?

একটি শব্দ ভাষার একটি একক যা একটি ধারণা বা ধারণা প্রকাশ করে। বাংলা ভাষায় অসীম সংখ্যক শব্দ রয়েছে, এবং সব সময় নতুন শব্দ তৈরি হচ্ছে। “হ্যাশট্যাগ” শব্দটি একটি ভাল উদাহরণ; এটি টুইটারে 2007 সালে প্রথম তৈরি করা হয়েছিল এবং 2012 সাল পর্যন্ত অভিধানে উপস্থিত হয়নি।

শব্দগুলিকে বিভিন্ন উপায়ে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে তাদের বক্তব্যের অংশ (যেমন, বিশেষ্য, ক্রিয়া, বিশেষণ, ক্রিয়াবিশেষণ), তাদের অর্থ, বা তাদের উৎপত্তি।

মানুষ হিসাবে, আমরা আমাদের চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতিগুলিকে যোগাযোগ করতে শব্দ ব্যবহার করি। কিন্তু আসলে শব্দ কি?

অক্সফোর্ড অভিধান অনুসারে, একটি শব্দ হল ভাষার একক যার অর্থ আছে এবং উচ্চারণ করা যায়। অন্য কথায়, শব্দগুলি কথার সাহায্যে যোগাযোগের একটি মাধ্যম। তারা আমাদের অন্যদের সাথে আমাদের অভিজ্ঞতা, চিন্তাভাবনা এবং অনুভূতি শেয়ার করার অনুমতি দেয়।

শব্দ কয় প্রকার ও কি কি?

শব্দ সাধারণত উৎপত্তিগত, গঠনগত এবং অর্থগত দিক দিয়ে বিভিন্ন প্রকার।

➣ উৎপত্তিগত দিক থেকে শব্দ সাধারণত পাঁচ প্রকার।

  • তৎসম শব্দ
  • অর্ধ-তৎসম শব্দ
  • তদ্ভব শব্দ
  • দেশি শব্দ
  • বিদেশি শব্দ

তৎসম শব্দ কাকে বলে?

“তৎ” কথার অর্থ হলো তার এবং “সম” কথার অর্থ হল সমান। তৎসম কথাটির সম্পূর্ণ অর্থ হল তার সমান।

যে সকল শব্দ সংস্কৃত ভাষা থেকে কোন রকম পরিবর্তন ছাড়াই বাংলা ভাষায় প্রবেশ করে বাংলা ভাষার নিজস্ব শব্দে পরিণত হয়েছে সেই সকল শব্দকে বলা হয় তৎসম শব্দ। যেমন-

প্রণাম, গ্রহ, নক্ষত্র, হস্ত, মস্তক ইত্যাদি।

অর্ধ-তৎসম শব্দ কাকে বলে?

যে সমস্ত শব্দ সংস্কৃত ভাষা থেকে কিছুটা বিকৃত হয়ে বাংলা ভাষায় প্রবেশ করে বাংলা ভাষার নিজস্ব শব্দে পরিণত হয়েছে সেই সকল শব্দকে বলা হয় অর্ধ-তৎসম শব্দ। যেমন-

গৃহিণী – গিন্নি

ঘৃণা – ঘেন্না

তদ্ভব শব্দ কাকে বলে?

“তৎ” কথার অর্থ হল তার, এবং “ভব” কথাটির অর্থ হল উৎপত্তি বা উৎপন্ন। যে সকল শব্দ সংস্কৃত ভাষা থেকে উৎপন্ন হয় প্রাকৃত ভাষার স্তরে পরিবর্তনের মাধ্যমে সম্পূর্ণ নতুনরূপে বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত হয়, সেই সমস্ত শব্দ কে বলা হয় তদ্ভব শব্দ। যেমন-

মৎস্য – মচ্ছ – মাছ

দন্ত – দান্ত – দাঁত

কর্ন – কন্ন – গান

দেশি শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ অনার্য জাতির ভাষা থেকে প্রাকৃত ভাষায় এসে কিছুটা পরিবর্তিত হয়ে বাংলা ভাষায় প্রবেশ করেছে, সেই সকল শব্দকে বলা হয় দেশি শব্দ। যেমন-

চাটাই, বোবা, কালা, ঝোল ইত্যাদি।

বিদেশি শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ কোনো পরিবর্তন ছাড়াই বিদেশি শব্দ থেকে বাংলা ভাষায় প্রবেশ করেছে সেইসব শব্দগুলোকে বলা হয় বিদেশি শব্দ। যেমন-

পাদ্রী, গির্জা, আলপিন ইত্যাদি।

➣ গঠনগত দিক থেকে শব্দ দুই প্রকার।

  • মৌলিক শব্দ
  • সাধিত শব্দ

মৌলিক শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দ বিশ্লেষণ করা যায় না বা ভেঙে আলাদা করা যায়না সেইসকল শব্দকে কলা হয় মৌলিক শব্দ। যেমন-

গোলাপ, লাল, নাক ইত্যাদি।

সাধিত শব্দ কাকে বলে?

যেসব শব্দকে বিশ্লেষণ করলে আলাদা অর্থযুক্ত শব্দ পাওয়া যায় সেইসব শব্দকে বলা হয় সাধিত শব্দ। যেমন-

নীল যে পদ্ম = নীলপদ্ম

ডুব+উড়ি = ডুবুরি

➣ অর্থগত দিক থেকে শব্দ তিন প্রকার।

  • যৌগিক শব্দ
  • রূঢ়ি শব্দ
  • যোগরূঢ় শব্দ

যৌগিক শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দের ব্যুৎপত্তিগত ও ব্যবহারিক অর্থ একই, সেই সকল শব্দকে বলা হয় যৌগিক শব্দ। যেমন-

গায়ক= গৈ+নক (অক) = যে গান করে

কর্তব্য= কৃ+তব্য = যা করা উচিত

রূঢ়ি শব্দ কাকে বলে?

যে সকল শব্দ প্রত্যয় বা উপসর্গযোগে মূল শব্দের অর্থের অনুগামী না হয়ে অন্য কোন বিশিষ্ট অর্থ দেয়, সেই সকল শব্দ কে বলা হয় রূঢ়ি শব্দ। যেমন-

হস্তী= হস্ত+ইন = হাত আছে যার

গবেষণা= গো+এষণা= গরু খোঁজা

যোগরূঢ় শব্দ কাকে বলে?

সমাস নিষ্পন্ন যে সকল শব্দ সম্পূর্ণভাবে সমস্যমান পদ সমূহের অর্থের অনুগামী না হয়ে ভিন্ন অর্থ দেয়, সেই সকল শব্দকে বলা হয় যোগরূঢ় শব্দ। যেমন-

পঙ্কজ= পঙ্কে জন্মে যা- কিন্তু পঙ্কজ বলতে পদ্মফুল কে শুধু বোঝায়।

জলধি- জল ধারণ করে যা- শুধু সমুদ্র কে বোঝায়।

এই AnswerChamp সাইটটি প্রতিদিন ভিজিট করবেন এই ধরনের সুন্দর সুন্দর তথ্য বাংলায় পাওয়ার জন্য। ধন্যবাদ।।

Sayan Ghosal

হাই, আমি সায়ন, AnswerChamp এর প্রতিষ্ঠাতা। ভালো লাগার পেশা এবং নেশা হলো ব্লগিং। আমি প্রযুক্তি বিষয়ে একটু বেশি আগ্রহী। তাই প্রযুক্তি বিষয়ক নতুন নতুন তথ্য জানতে এবং শেয়ার করতে খুব ভালো লাগে।
View All Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.