এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর কি? টোল ফ্রী কাস্টমার কেয়ার নম্বর

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর: এয়ারটেল শুধুমাত্র ভারতেই না সারাবিশ্বে একটি অত্যন্ত পপুলার টেলিকমিউনিকেশন সার্ভিস কোম্পানি। সারাবিশ্বে এয়ারটেল নেটওয়ার্ক খুবই জনপ্রিয় একটি নেটওয়ার্ক। আমাদের ভারতে এয়ারটেলের দাবি তারা ভারতের সবথেকে দ্রুততম নেটওয়ার্ক। 2021 এর জুন মাসের গণনা অনুযায়ী সারা বিশ্বে 474 মিলিয়ন এর বেশী মানুষ এয়ারটেল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেন।

আমাদের ভারতেও এয়ারটেল খুবই জনপ্রিয় একটি নেটওয়ার্ক। এবং এটি অনেক পুরানো একটি নেটওয়ার্ক। আপনি যদি একজন এয়ারটেল ইউসার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি অবশ্যই জানেন এয়ারটেল এর ইন্টারনেট স্পিড কতটা ভালো। অন্যান্য নেটওয়ার্ক এর তুলনায় অনেকটাই ভালো ইন্টারনেট স্পিড প্রদান করে থাকে এয়ারটেল।

তবে কিছু কিছু সময় সমস্যার কারণে একটু নেটওয়ার্কের প্রবলেম হয়ে থাকে আর যার জন্য কাস্টমার কেয়ারে কল করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। এছাড়াও আরো অন্যান্য কারণের জন্য এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে কল করার প্রয়োজন হয়ে থাকে। সাধারণত এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগ করার জন্য একটি টোল ফ্রি নাম্বার রয়েছে যেখানে কল করে আপনি কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করতে পারেন।

এয়ারটেল সম্পর্কে বিস্তারিত

এয়ারটেল শুধুমাত্র মোবাইলের নেটওয়ার্ক নয়, ব্রডব্যান্ড, পেমেন্ট ব্যাঙ্ক, ডিজিটাল টিভি এর মত আরো কিছু সার্ভিস ও দিয়ে থাকে এয়ারটেল। আজকের এই আর্টিকেলটিতে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর এবং কিভাবে আপনি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করবেন তার পদ্ধতি।

Airtel (এয়ারটেল) সাধারণত যেসব সার্ভিস প্রোভাইড করে থাকে প্রত্যেকটি সার্ভিস এর ক্ষেত্রে যোগাযোগের জন্য নাম্বার আলাদা আলাদা। আমি এখানে মোবাইল এর প্রিপেইড এবং পোস্টপেইড এর জন্য কিভাবে এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করবেন এবং এয়ারটেল DTH এর জন্য এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর ও শেয়ার করব। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর এবং কিভাবে এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করা যায়।

আরও পড়ুন:  How to Add a PDF Viewer to Your WordPress Site

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর

আপনি যদি একটি এয়ারটেল কাস্টমার হয়ে থাকেন এবং কোন কারণে আপনি যদি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগ করতে চান তাহলে আপনাকে বলে রাখি, এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করার জন্য একটি টোল ফ্রি নাম্বার রয়েছে এবং একটি নাম্বার রয়েছে যেই নম্বরটিতে আগে কল করার জন্য 3 মিনিটে 50 পয়সা করে চার্জ করা হতো। তবে এখন যেহেতু সবকিছুই আনলিমিটেড প্যাক তাই এটিও এখন টোল ফ্রি করে দেওয়া হয়েছে।

দুটো নাম্বারি আমি আপনাদের সাথে এখানে শেয়ার করব। যেমনটা আমি আগে বললাম প্রথম থেকেই একটি নাম্বার সম্পূর্ণ টোল ফ্রি ছিল। এবং আরো একটি নাম্বার আগে কল করার জন্য 3 মিনিটে 50 পয়সা করে চার্জ করা হতো সেটিও বর্তমানে টোল ফ্রি করে দেওয়া হয়েছে। তাই দুটো নাম্বারের মধ্যে আপনার যেই নম্বরটিতে মন চায় সেটিতে কল করতে পারেন। তবে দুটো নম্বরের পদ্ধতি একই।

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে কল করার জন্য যে টোল ফ্রি নাম্বার টি হয়েছে সেটি হল 198। এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারের এই টোল ফ্রি নম্বরটি শুধুমাত্র কমপ্লেন এর জন্য।

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার এ কথা বলার জন্য আরো একটি নাম্বার রয়েছে সেটি হল 121। আপনি চাইলে এই নম্বরটিতেও কল করে এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারের সাথে কথা বলতে পারেন। বর্তমানে এই নম্বরটি ও পুরোপুরি টোল ফ্রি।

198 এবং 121 এই দুটি টোল ফ্রি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নাম্বার এ আপনি সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন। দুটো নম্বরেই কল করার পদ্ধতি একই। নিচে আমি আপনাদেরকে বলবো কিভাবে আপনি এই নম্বর থেকে কাস্টমার কেয়ারে কল করবেন।

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নাম্বার ছাড়া আর কিভাবে যোগাযোগ করা যায়?

এবার আপনি যদি মনে করেন এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে কল করা ছাড়া অন্য কোন ভাবে যোগাযোগ করার কথা, তাহলে আপনি সেটিও করতে পারেন। তবে এই পদ্ধতিটি সম্পূর্ণ অনলাইন পদ্ধতি। এর জন্য আপনার একটি ল্যাপটপ অথবা এন্ড্রয়েড মোবাইল দরকার এবং তাতে ইন্টারনেট কানেকশন দরকার হবে।

আরও পড়ুন:  GooglePay তে UPI Pin Change অথবা Reset কিভাবে করতে হয়? UPI Pin Change করার নিয়ম

এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর ছাড়া আপনি এয়ারটেল এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট রয়েছে https://airtel.in সেখানে Help সেকশনে গিয়ে আপনি সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন।

এছাড়াও আপনি আপনার এন্ড্রয়েড ফোনে যে My Airtel অ্যাপ টি রয়েছে সেটি ইনস্টল করে সেখান থেকেও এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করতে পারেন। এমনকি এই অ্যাপ্লিকেশন থেকে আপনি আপনার এয়ারটেল নাম্বারের সমস্ত তথ্য পেয়ে যাবেন। আপনার অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স থেকে আরম্ভ করে ডেটা ব্যালেন্স এবং Airtel Payment Bank এর তথ্যও পেয়ে যাবেন।

কিভাবে এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করা যায়?

আপনি যদি উপরে দেওয়া যে দুইটি টোল ফ্রি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর রয়েছে সেটির যেকোন একটিতে কল করেন তাহলে কোন কোন পদ্ধতি অনুসরণ করলে আপনি ডাইরেক্ট এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারের সাথে কথা বলতে পারবেন সেটি আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

দুটি নম্বর থেকে কল করার পদ্ধতি সম্পূর্ণ একই। তাই যেকোন একটি নম্বর এ কল করে আপনি এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন।

প্রথমে আপনি আপনার এয়ারটেল নম্বর থেকে 198 অথবা 121 নম্বরে কল করুন।

এরপর আপনাকে কিছু অপশন সিলেক্ট করতে বলা হবে। যদি আপনি এয়ারটেল প্রিপেড এর সম্বন্ধে জানার জন্য কাস্টমার কেয়ারে কল করে থাকেন তাহলে আপনাকে আপনার ফোনের কীবোর্ড থেকে 1 নম্বর অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। এবং পোস্টপেইড জন্য 2 নম্বর অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। আর এয়ারটেল DTH এর জন্য 3 নম্বর অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে।

প্রিপেড এর জন্য 1 নম্বর অপশনটি সিলেক্ট করার পর আপনাকে আরো কিছু অপশন দেওয়া হবে। সেখান থেকে সর্বপ্রথম যে অপশনটি রয়েছে ইন্টারনেট সংক্রান্ত সমস্যার জন্য। সেটি আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে মোবাইলের কীবোর্ডের 1 নম্বর প্রেস করে।

এরপর আরো কিছু অপশন আসবে সেগুলো আপনাকে পুরোটা শুনতে হবে না হলে আপনি যদি কোন নম্বর প্রেস করেন সেটি কাজ করবে না। পুরোটা শোনার পর আপনি সরাসরি কাস্টমার কেয়ারে কথা বলার জন্য 9 নম্বর অপশনটি প্রেস করবেন।

আরও পড়ুন:  ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ডিলিট কীভাবে করা যায়? ফেসবুক একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম

এরপর কিছুক্ষন অপেক্ষা করার পর আপনার কলটি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার এ কানেক্ট হয়ে যাবে। তবে একটা কথা মাথায় রাখবেন যারা প্রথমবার এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে ফোন করছেন তাদের জন্য হয়তো প্রথমে ভাষা সিলেক্ট করতে হতে পারে। তাই প্রথমে অবশ্যই শুনে নেবেন যদি ভাষা সিলেক্ট করতে বলা হয় তাহলে অবশ্যই বাংলা সিলেক্ট করে নেবেন। এরপর পরবর্তী পদ্ধতি একদম একই থাকবে।

জরুরি তথ্য

উপরের পুরো আর্টিকেলটি তে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার নম্বর এবং কিভাবে আপনি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে কল করবেন। অনেকের হয়তো মনে হতে পারে এইতো জানা জিনিস যে কেউ করতে পারে। কিন্তু অনেকে আছেন যারা প্রচুর অপশন থাকার কারণে বিভ্রান্ত হয়ে যান। এই আর্টিকেলটা তাদের অনেক সাহায্য করবে।

কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন কোন সমস্যার জন্য আপনি এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করলেন। এবং প্রথমবার ঠিক কতক্ষণ সময় লেগেছে কাস্টমার কেয়ারের সাথে কথা বলার জন্য। আর্টিকেলটি অবশ্যই শেয়ার করবেন। আর AnswerChamp সাইটটি ফলো করবেন এই রকম ছোট ছোট টিপস এন্ড ট্রিকস জানার জন্য। ধন্যবাদ।।

Leave a Comment